সরকারি কলেজের শিক্ষক বদলি/পদায়ন নীতিমালা-২০২০|| Government College Teacher Transfer / Posting Policy-2020 - সকল গেজেট এক ঠিকানায় || All gazettes are in one site.

সরকারি কলেজের শিক্ষক বদলি/পদায়ন নীতিমালা-২০২০|| Government College Teacher Transfer / Posting Policy-2020


সরকারি কলেজের শিক্ষক বদলি/পদায়ন নীতিমালা-২০২০|| Government College Teacher Transfer / Posting Policy-2020

সরকারি কলেজের শিক্ষক বদলি/পদায়ন নীতিমালা-২০২০। সরকারি কলেজের শিক্ষকদের বদলি/পদায়নের পদ্ধতি যুগোপযোগী করার লক্ষে এই নীতিমালা জারি করা হয়েছে।বিভিন্ন সরকারি কলেজে কর্মরত শিক্ষকদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে/সরকারের প্রয়োজনে বদলি/পদায়নের ক্ষেত্রে এ নীতিমালা প্রযোজ্য হবে। সরকার জনস্বার্থে যে কোন সময় যে কোন কর্মকর্তাকে যে কোন পদে বদলি/পদায়ন করতে পারবে।

সরকারি কলেজের শিক্ষক বদলি/পদায়ন নীতিমালা-২০২০। সরকারি কলেজের শিক্ষকদের বদলি/পদায়নের পদ্ধতি যুগোপযোগী করার লক্ষে এই নীতিমালা জারি করা হয়েছে।বিভিন্ন সরকারি কলেজে কর্মরত শিক্ষকদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে/সরকারের প্রয়োজনে বদলি/পদায়নের ক্ষেত্রে এ নীতিমালা প্রযোজ্য হবে। সরকার জনস্বার্থে যে কোন সময় যে কোন কর্মকর্তাকে যে কোন পদে বদলি/পদায়ন করতে পারবে।


গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ, সরকারি কলেজ-২ শাখা থেকে ২ জুন, ২০২০ খ্রিঃ তারিখে উপসচিব ড. শ্রীকান্ত কুমার চন্দ স্বাক্ষরিত একটি নীতিমালা জারি করা হয়। 

আবেদনের পদ্ধতি ও শর্তাবলি:


১. অনুচ্ছেদ ৩.০ এর সিডিউল অনুযায়ী নির্ধারিত মাসের ১৫ তারিখের মধ্যে অনলাইনে বদলির আবেদন দাখিল করতে হবে। আবেদনের সাথে সংশ্লিষ্ট/প্রয়োজনীয় কাগজ-পত্রাদি সংযুক্ত করতে হবে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে অনলাইন (Www.shed.gov.bd অথবা www.dshe.gov.bd এর নির্ধারিত লিংক)ব্যতীত অন্য কোন উপায়ে প্রেরিত/পেশকৃত আবেদন বিবেচনা করা হবে না; 

২. আবেদনকারীকে অনলাইনে দাখিলকৃত আবেদনপত্র প্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করা হবে।





৩. ক) নবনিয়োগপ্রাপ্ত প্রভাষকগণ চাকরি দু’বছর পূর্ণ হওয়ার পূর্বে বদলির জন্য আবেদন করতে পারবেন না; 

খ) অন্যান্য শিক্ষক/কর্মকর্তাগণ একই কর্মস্থলে ০৩(তিন) বছর পূর্ণ হওয়ার পূর্বে অন্যত্র বদলির জন্য আবেদন করতে পারবেন না; 

গ) তবে কোন গুরুতর শারীরিক/মানসিক/পারিবারিক পরিস্থিতির কারণে ক্ষেত্র বিশেষে ৩ (তিন) বছর পূর্ণ হবার পূর্বেও আবেদন করা যাবে। যৌক্তিকতা সাপেক্ষে আবেদন বিবেচনার এখতিয়ার সরকারের থাকবে। 

৪. স্বামী-স্ত্রী উভয়ে চাকরিজীবী হলে স্বামী বা স্ত্রী’র কর্মস্থলে/নিকটতম শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বদলি/পদায়নের জন্য আবেদন করা যাবে। তবে যেহেতু এ ধরনের কর্মকর্তার সংখ্যা অনেক, সেক্ষেত্রে শিক্ষা সেবা প্রাপ্তির বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে সরকার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত প্রদান করবে;

৫. অবসর প্রস্তুতিমূলক ছুটিতে যাওয়ার এক বছর পূর্বে কোন কর্মকর্তা/শিক্ষক তার সুবিধামত স্থানে বদলির জন্য আবেদন করলে পদ শূন্য থাকা সাপেক্ষে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে উক্ত আবেদন বিবেচনা করা যাবে; 

৬. অসম্পূর্ণ তথ্য সম্বলিত আবেদন বিবেচনাযোগ্য হবে না;

৭. উভয় শিক্ষক/কর্মকর্তার সুবিধা হয় এমন পারস্পরিক বদলির ক্ষেত্রে উভয়ের সম্মতিতে আবেদন করলে বিবেচনা করা হবে; 

৮. কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এক বিষয়ে একজন মাত্র শিক্ষক একাধারে ০৩(তিন) বছর পূর্ণ হলেও বিকল্প শিক্ষক পদায়ন সাপেক্ষে তাঁর বদলির বিষয়টি বিবেচ্য হবে।

 নীতিমালাটি দেখুন-


--------------------------------------
আরও দেখুন-


------------------------------------------------------

পোস্টের নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুকপেজে” লাইক দিয়ে রাখুন।

আর্টিকেলটি ভালো লাগলে নিচের ফেসবুক, টুইটার বা গুগল প্লাসে
শেয়ার করে আপনার টাইমলাইনে রেখে দিন। এতক্ষণ সঙ্গে থাকার জন্য ধন্যবাদ।



কোন মন্তব্য নেই

pollux থেকে নেওয়া থিমের ছবিগুলি. Blogger দ্বারা পরিচালিত.